নামাজ (পর্ব-২)

যারা গত পর্ব পড়েননি তারা ইচ্ছা করলে এখান থেকে পড়ে নিতে পারেন।

গত পর্বে নামাজের ফরয সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে।

 

আজ আমরা জানবো নামাজের ওয়াজিব ও সুন্নাতে মুয়াক্কাদা সম্পর্কে।

নামাজের ওয়াজিব

নামাজের ওয়াজিব হল এমন কিছু কাজ যা ইচ্ছাকৃতভাবে ছেড়ে দিলে নামাজ বাতিল হয়ে যায়, নামাজ পুনরায় পড়তে হয়।আর অনিচ্ছাকৃতভাবে বাদ পড়লে যদি শেষ বৈঠকে আত্তাহিয়্যাতু শেষ করার পুর্বে মনে পড়ে তাহলে আত্তাহিয়্যাতু শেষ করে সাহু সেজদা দিলে নামাজ আদায় হয়ে যাবে।

       নামাজের ওয়াজিব ১৪টি।

১  সুরা ফাতেহা পড়া।

২  সুরা ফাতেহার সাথে সুরা মিলানো।

৩  রুকু সিজদায় কিছুক্ষন অপেক্ষা করা।

৪  রুকু থেকে সোজা হয়ে দাঁড়ানো।

৫  দুই সেজদার মাঝখানে সোজা হয়ে বসা।

৬  প্রথম বৈঠকে বসা।

৭  উভয় বৈঠকে আত্তাহিয়্যাতু পড়া।

৮  ইমামের জন্য কেরাত আস্তে এবং জোরে পড়া।

৯   বিতিরের নামাজে দোয়ায়ে একুনুত পড়া।

১০  প্রত্যেক ফরয নামাজের প্রথম ২ রাকাতকে কেরাতের জন্য নির্দিষ্ট করা।

১১  প্রত্যেক রাকাতের ফরযগুলোর ধারাবাহিকতা ঠিক রাখা।

১২  প্রত্যেক রাকাতের ওয়াজিবগুলোর তারতিব ঠিক রাখা।

১৩  দুই ঈদের নামাজে ৬টি করে তাকবির বলা।

১৪  আসসালামু আলাইকুম বলে নামাজ শেষ করা।

   নামাজের সুন্নাতে মুয়াক্কাদা

নামাজের সুন্নাতে মুয়াক্কাদা হল এমন কার্যাবলি যা ছাড়লে নামাজ বাতিল হয়না কিন্তু বিনা কারনে ছাড়লে নামাজ মাকরুহ হয়।কারন বষত ছাড়া যায়।

১ সানা পড়া।

২ আউযু বিল্লাহি মিনা শাইতনির রজিম পড়া

৩ বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম পড়া।

৪ সুরা ফাতেহার শেষে আমিন বলা।

৫ রুকুর তাকবির বলা।

৬ রুকুর তাসবিহ পড়া।

৭ রুকু থেকে উঠে সামিয়াল্লাহুলি মান হামিদা রব্বানা লাকাল হামদ হামদান কাছিরং তয়্যিবান মুবারকান ফিহ বলা।

৮ সেজদার তাকবির বলা।

৯ সিজদার তাসবিহ পড়া।

 

ওমর ফারুক হেলাল

তেমন কেউ না,একজন ছাত্র।মাদ্রাসায় পড়ালেখা করছি ভালো আলেম হওয়ার আশায়।পাশাপাশি দ্বীনে কিছু কাজের সাথে জড়িত আছে পরকালীন মুক্তির নেশায়। আল্লাহ আমাকে কবুল করুক। আমীন

One thought on “নামাজ (পর্ব-২)

  • November 12, 2012 at 8:24 am
    Permalink

    খুব সুন্দর !চালিয়ে যান ।সাথে ই আছি…

Leave a Reply