হাদীস (পর্ব-০৩)

পরম করুনাময় আল্লাহ্ এর নামে শুরু করলাম

 

আসসালামু আলাকুম, কেমন আছেন সবাই? আশা করি ভালই আছেন, আমি ও আমরা আপনাদের দোয়ায় এবং আল্লাহ্র অশেষ রহমতে অনেক ভাল আছি।

পর্ব এক

পর্ব ০২

হাদীসঃ হযরত মোহাম্মদ (সঃ) বলিয়াছেন-ইজা মুদিহাল ফা-ছিকু গাজাবারব্বু আহ্ তাঝ্ ঝা লিজা-লিকাল আরশু অর্থাৎ কোন ফাছেকের তারিফ করিলে তৎকারনে আল্লাহ্ এর আরশ কাঁপিয়া উঠে এবং আল্লাহ্ তা’আলা অত্যন্ত অসন্তুষ্ট হন।

ক্কাতাদা রাজীয়াল্লাহু আনহু বলিয়াছেন-আকিকার জানোয়ার জবেহ করিয়া তাহার একটি পশম লইয়া পশমটি প্রবাহিত রক্তের স্রোতে ধরিয়া ঐ রক্ত শিশুর মাথার তালুর উপর প্রবাহিত করিবে এবং পরে মাথা ধোয়াইয়া, মাথা কামাইয়া দিবে এবং চুলগুলির ওজনে স্বর্ণ বা রৌপ্য ছদকা দবে। শিশুর মাথায় জাফরান মাখাইয়া দেওয়াও ভাল।

 

মাছালাঃ খাতনা দেওয়া বাপের উপর ছেলের একটি হক। খাত্নার বয়সের কোন নির্ণয় নাই; কিন্তু সাত বৎসর বয়সে খাতনা দেওয়াই উত্তম এবং বালেগ হওয়ার পূর্বে অবশ্যই খাত্ননা দিবে।

 

মাছালাঃ আকিকা জবেহ্কারী ‘বিছমিল্লহি আল্লাহু আকবার’ বলিয়া জবেহ করিয়া বলিবে, ‘আল্ল-হুম্মা মিন্কা অ-ইলাইকা, আকি-কতু ফুলানিবইন ফুলান’।

মাছালাঃ সন্তান যদি সপ্তম দিবসের পূর্বে মরিয়া যায় তবুও তাহার নাম রাখিয়া দেওয়া সুন্নত।

 

মাছালাঃ ছেলে মেয়ে দশ দশ বৎসর বয়সে নামাজ না পরিলে শান্তি বিধান করিয়া তাহদের দ্বারা নামাজ পড়ান মা বাপের উপর এবং ওলীর উপর অজেব।

এইরূপে শরীয়তের যাবতীয় ফরজ ওয়াজেবগুলি যেমঃ কালেমা, ওযু-গোসল, নামাজ, রোযা, পাক, নাপাক, হালাল, হারাম, জায়েয, না-জায়েয ইত্যাদি ছেলে মেয়েদের শিক্ষা দেওয়াও মা বাপ এবং ওলীর উপর অজেব। মেছওয়াক করা শিক্ষা দেওয়া, জামায়াতে, মসজিদে হাজির হওয়া শিক্ষা দেওয়া এবং মিথ্যা, চুরি, বদ্ মাআ-সি, গালাগালি,পরের ক্ষতি, পরনিন্দা ইত্যাদি হারাম কাজ হইতে ফিরাইয়া রাখঅও মা বাপ এবং ‍ওলীর উপর ওয়াজেব। এইরূপে হয়রত পয়গাম্বর ছাহেবের মক্কাশরীফে জন্মবৃত্তান্ত তাঁহার ফযিলত পরগন্মরীপ্রাপ্তি ও দ্বীন জারি এবং মদিনাশরীফে ইন্তেকাল এবং কবর শরীফের বিষয়ও শিক্ষা দেওয়া ওয়াজেব।

ভাল লাগলে কমেন্টে জানাতে ভুলবে না…

ভুলে ভরা জীবনে ভুল হওয়াটা অসম্ভব কিছু নয়,যদি আমার লেখার মাঝে কোন ভুলত্রুটি থাকে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। ধন্যবাদ সবাই ভাল থাকবেন।

মোঃ আবুল বাশার

আমি একজন ছাত্র,আমি লেখাপড়ার মাঝে মাঝে একটা ছোট্ট পত্রিকা অফিসে কম্পিউটার অপরেটর হিসাবে কাজ করে,নিজের হাত খরচ চালানোর চেষ্টা করি, আমি চাই ডিজিটাল বাংলাদেশ হলে এবং তাতে সেই সময়ের সাথে যেন আমিও কিছু শিখতে পারি। আপনারা সকলে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পরার চেষ্টা করুন এবং অন্যকেও ৫ওয়াক্ত নামাজ পরার পরামর্শ দিন। আমার পোষ্ট গুলো গুরে দেখার জন্য ধন্যবাদ, ভাল লাগেলে কমেন্ট করুন। মানুষ মাত্রই ভুল হতে পারে,ভুল ত্রুটি,হাসি,কান্না,দু:খ,সুখ,এসব নিয়েই মানুষের জীবন। ভুলে ভড়া জীবনে ভুল হওয়াটা অসম্ভব কিছু নয়,ভুল ত্রুটি ক্ষমার দৃর্ষ্টিতে দেখবেন। আবার আসবেন।

Leave a Reply