দাজ্জাল” সংক্রান্ত সহীহ হাদীস সমূহ

“দাজ্জাল” সংক্রান্ত সহীহ হাদীস সমূহ:-প্রিয় দীনই বন্ধু/ভাই/বোনেরা, আমি এই অধ্যায়ে মশীহে দাজ্জাল সংক্রান্ত কিছু সহীহ হাদীস সংগ্রহে রাখার ইচ্ছা পোষণ করে একটি পূর্ণাঙ্গ অধ্যায় তৈরি করতে চাই| এই বিষয়ে সহীহ হাদীস সমূহ সংগ্রহের পর একটি লেখা ফেসবূক ব্যবহারকারী বন্ধু/ভাই/বোন-দের উদ্দেশ্যে প্রকাশের ইচ্ছা আছে| তাই এই বিষয়ে আপনাদের সার্বিক সহযোগিতা এবং দাজ্জাল সংক্রান্ত সহীহ হাদীস সমূহ আমার এই কলামে মন্তব্য হিসাবে পোস্ট করলে বাধিত হব| আমি কিছু সহীহ হাদীস সংগ্রহ করে এখানে উপস্থাপন করলাম:-(1) হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উমার (রাঃ) থেকে বর্ণিত:রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, আল্লাহ এক চোখ বিশিষ্ট নন| কিন্তু মশীহে দাজ্জালের ডান চোখ কানা, তার চোখ হবে আঙ্গুরের দানার মত ফুলা|*** ইমাম বুখারী ও ইমাম হাদীসটি বর্ণনা করেছেন|

 

(2) আনাস(রা:) থেকে বর্ণিত| তিনি বলেন: রাসূল(সা:) বলেছেন, প্রত্যেক নবী তার উমমতকে কানা মিথ্যাবাদী(দাজ্জাল) সম্পর্কে সাবধান করেছেন| সাবধান! সে কানা| তোমাদের মহান ও শক্তিমান প্রভু কানা নন| সেই কানা মিথ্যাবাদী দাজ্জালের কপালে কাফ, ফা ও রা লেখা থাকবে (কাফীর)| *** ইমাম বুখারী ও ইমাম মুসলিম হাদীসটি বর্ণনা করেছেন|

 

(3) আনাস(রা:) থেকে বর্ণিত: তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ(সা:) বলেছেন: মক্কা-মদিনা ব্যতীত এমন কোনও জনপদ অবশিষ্ট থাকবে না যা দাজ্জাল পদদলিত করবে না| এ দুই পবিত্র নগরীর প্রতিটি প্রবেশ পথে ফেরেশতারা কাতারবন্দী হয়ে পাহারা দেবে| দাজ্জাল ‘সাবখাহ’ নামক স্থানে এসে পৌছলে মদিনাতে তিনবার ভূমিকম্প হবে| এভাবে আল্লাহ সমস্ত কাফীর ও মুনাফিকদের মদিনা থেকে বের করে দিবেন|*** ইমাম মুসলিম হাদীসটি বর্ণনা করেছেন|

 

(4) আনাস(রা:) থেকে বর্ণিত: রাসূল(সা:) বলেছে, সবুজ চাদর পরিহিত ইসফাহানের সত্তর হাজার ইহুদি দাজ্জালের সাথে যোগ দেবে|*** ইমাম মুসলিম হাদীসটি বর্ণনা করেছেন|

 

(5) উম্মু সারিক(রা:) থেকে বর্ণিত: তিনি নবী করিম(সা:)কে বলতে শুনেছেন: দাজ্জালের ভয়ে মানুষ অবশ্যই পাহাড়-পর্বতে পলায়ন ন্করবে|*** ইমাম মুসলিম হাদীসটি বর্ণনা করেছেন|

 

(6) ইমরান ইবনে হুসাইন(রা:) থেকে বর্ণিত: তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সা:) বলতে শুনেছি: আদম(আ:)-এর জন্ম থেকে কিয়ামত পর্যন্ত সময়ের মধ্যে দাজ্জালের অনাচারের চেয়ে অধিক অনাচার আর হবে না|*** ইমাম মুসলিম হাদীসটি বর্ণনা করেছেন|

 

(7) আবু হুরায়রা(রা:) থেকে বর্ণিত: রাসূল(সা:) বলেছেন: মুসলিমরা ইহুদীদের সাথে যুদ্ধ না করা পর্যন্ত কিয়ামত সংঘটিত হবে না| অবশেষে পরাজিত হয়ে ইহুদীরা মুসলিমদের ভয়ে পাথর ও গাছের আড়ালে আত্তগোপন করবে| কিন্তু গাছ ও পাথরও বলে উঠবে, হে মুসলিম! এখানে ইহুদি আমার পেছনে লুকিয়ে আছে, আস, একে হত্যা কর| কিন্তু ‘গারকাদ’ নামক গাছ তা বলবে না| কেননা ঐটা ইহুদীদের গাছ|*** ইমাম বুখারী ও ইমাম মুসলিম হাদীসটি বর্ণনা করেছেন|

 

(8) আব্দুল্লাহ ইবনে আমর ইবনুল আস(রা:) থেকে বর্ণিত: তিনি বলেন, রাসূল(সা:) বলেছেন: আমার উম্মতের মধ্যে দাজ্জালের আবির্ভাব হবে এবং চল্লিশ পর্যন্ত অবস্থান করবে| বর্ণনাকারী বলেন, নবী(সা:) চল্লিশ দিন, না চল্লিশ মাস, না চল্লিশ বছর বলেছেন তা আমার মনে নেই| অতপর আল্লাহ তা’আলা ঈসা ইবনে মারিয়াম(আ:)-কে পাঠাবেন| তিনি দাজ্জালকে খুজে বের করে হত্যা করবেন| অতপর লোকেরা সাত বছর এমনভাবে কাটাবে যে দু’জন লোকের মধ্যেও কোনও শত্রুতা থাকবে না| মহান ও সর্ব শক্তিমান আল্লাহ সিরিয়ার দিক থেকে একটি শীতল বাতাস প্রবাহিত করবেন| ফলে পৃথিবীর বুকে এমন কোনও ব্যাক্তি অবশিষ্ট থাকবে না যার মধ্যে সামান্য পরিমাণ সত্‍ কাজের আগ্রহ বা ঈমান আছে, বরং এ ধরনের সব লোকের রুহ কবজ করে নেবে| এরপর শুধু দুস্কৃতিকরিরাই জীবিত থাকবে| তারা যৌনতা ও কুপ্রবৃত্তির বেলায় পাখির মত এবং জুলুম অত্যাচার-এর বেলায় হিংস্র জন্তুর মত হবে| তারা ভাল কাজ বলতে কিছুই জানবে না এবং খারাপ কাজ বলতে কোনটাই না করে ছাড়বে না| শয়তান মানুষের বেশ ধরে তাদের কাছে এসে বলবে, তোমরা কী আমার কথা মানবে? তারা বলবে, তুমি আমাদের কী কাজ করতে বল? শয়তান তাদের মূর্তি পূজার হুকুম দেবে| মূর্তিপুজা চলাকালে তাদের খাদ্যদ্রব্যের প্রাচুর্জ্য চলতে থাকবে; জীবনটা অত্যন্ত বিলাসী ও আনন্দ-উল্লাসময় হবে| অতপর, সিংগায় ফু’ দেয়া হবে| যে ব্যাক্তি শিঙ্গার আওয়াজ শুনতে পাবে, সে সে ঘাড় বাকিয়ে সেদিকে তাকাবে এবং ঘাড় উঠাবে| সর্বপ্রথম যে ব্যাক্তি আওয়াজ শুনতে পাবে, সে তখন তার উটের পানির চৌবাচ্চা পরিস্কার করতে থাকবে| সে বেহুস হয়ে পরবে এবং তার আশেপাশের লোকজনও বেহুস হয়ে যাবে| এরপর আল্লাহ শিশির বিন্দুর ন্যায় বৃষ্টি পাঠাবেন| অথবা তিনি বলেছেন, মুশলধারে বৃষ্টি নাযিল করবেন| এর দারা মানুষের শরীর গঠিত হয়ে উঠবে| অতপর, দিতিযবার সিংগায় ফু’ দেয়া হবে এবং তখন সমস্ত মানুষ উঠে দাড়িয়ে চারিদিকে দেখতে থাকবে| তখন বলা হবে, হে মানুষেরা! তোমাদের প্রভুর কাছে এস| এরপর (হুকুম দেয়া হবে), তাদেরকে দার করাও| কেননা তাদেরকে পুংগ্খানুপূঙ্গ্খু রূপে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে| এরপর বলা হবে, এদের মধ্য থেকে জাহান্নামের অংশটা বের করে ফেল| বলা হবে, কত সংখ্যক? বলা হবে, প্রতি হাজারে নয় শত নিরানব্বই জন| এটাই সেই দিন, যেদিন তরুণ বৃদ্ধ হয়ে যাবে, যেদিন সব কিছু স্পষ্ট করে তুলে ধরা হবে|*** ইমাম মুসলিম হাদীসটি বর্ণনা করেছেন|

 

(9) আবু হুরায়রা(রা:) থেকে বর্ণিত: রাসূল(সা:) বলেছেন: আমি তোমাদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে এমন কথা বলবণা, যা সম্পর্কে অন্য কোনও নবী তার উমমতকে বলেননি? সে হবে কানা এবং তার সাথে থাকবে জাহানামের মত একটি এবং জান্নাতের মত একটি জিনিস নিয়ে আসবে| সে যেটাকে জানাত বলে পরিচয় দিবে সেটা হবে প্রকৃতপক্ষে জাহান্নাম এবং তেমনি ভাবে তার সাথে থাকা জাহান্নামটি হবে প্রকৃতপক্ষে জান্নাত|*** ইমাম বুখারী ও ইমাম মুসলিম হাদীসটি বর্ণনা করেছেন|

 

(10) মুগীরা ইবনে স’বা(রা:) থেকে বর্ণিত: তিনি বলেন, দাজ্জালের ব্যাপারে আমি রাসূলুল্লাহ(সা:)’কে যত বেশি প্রশ্ন করেছি, অন্য কেউ ততটা জিজ্ঞেস করেনি| তিনি আমাকে বলেছেন: সে আমার কোনও ক্ষতি করতে পারবে না| আমি বললাম: লোকের বলে যে, তার সাথে রুটির পাহাড় ও ঝর্ণা থাকবে| তিনি বললেন: আল্লাহ’র কাছে এটি মামুলি ব্যাপার|*** ইমাম বুখারী ও ইমাম মুসলিম হাদীসটি বর্ণনা করেছেন|

 

(11) রিব’ই ইবনে হীরাস(রা:) থেকে বর্ণিত: তিনি বলেছেন, আমি আবু মাসুউদ আনসারী(রা:)-র সাথে হুজাইফা ইবনুল ইয়ামান(রা:)-এর কাছে গেলাম| আবু মাসুউদ আনসারী(রা:)তাকে বললেন, আপনি দাজ্জাল সমন্ধে রাসূলুল্লাহ(সা:)-এর কাছে যা শুনেছেন তা আমাকে বলুন| তিনি বলেন, দাজ্জালের আবির্ভাব হবে এবং তার সাথে পানি ও আগুন থাকবে| কিন্তু লোকের যে পানি দেখবে তা আসলে জলন্ত আগুন| আর লোকেরা যে আগুন দেখবে তা আসলে সুপেয ঠান্ডা পানি| তোমাদের মধ্যে যে লোক সুযোগ পাবে সে যেন তার কাছে যে দিকটা আগুন মনে হবে সে দিকে ঢুকে পড়ে| কেননা তা হবে প্রকৃতপক্ষে সুপেয পানি| এ হাদীস শুনে আবু মাসুউদ আনসারী(রা:) বলেন, আমিও মহানবী(সা:) থেকে একথা শুনেছি|*** ইমাম বুখারী ও ইমাম মুসলিম হাদীসটি বর্ণনা করেছেন|

সংগ্রহ [শাকিল তালিকদার]

নবাগত রাহী

"ইসলামিকএমবিট (ডট) কম" একটি উন্মুক্ত ইসলামিক ব্লগিং প্লাটর্ফম। এখানে সকলেই নিজ নিজ ইসলামিক জ্ঞান নিয়ে আলোচনা করতে পারেন, তবে এখানে বিতর্কিত বিষয় গুলো allow করা হয় না। আমি এই ব্লগ সাইটটির সকল টেকনিক্যাল বিষয় গুলো দেখাশুনা করি। আপনাদের যে কোন প্রকার সাহায্য, জিজ্ঞাসা, মতামত থাকলে আমাকে মেইল করতে পারেন contact@islamicambit.com

Leave a Reply