স্ত্রীকে ভালবাসুন

স্ত্রীকে ভালবাসুন
সমস্ত বিবাহিত ভাইদের জন্য
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে আপনার চায়ে ছোট একটি চুমুক দেয়। কারণ, সে নিশ্চিত হতে চায় চা টি আপনার পছন্দ মত হয়েছে কিনা।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে আপনাকে নামাজ পড়তে জোর করে। কারণ সে আপনারই সাথে জান্নাতে যেতে চায়।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে আপনাকে সন্তানদের সাথে খেলা করতে বলে। কারণ সন্তানদের অভিভাবক সে একা নয়।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে আপানাকে নিয়ে ঈর্ষান্বিত হয়। কারণ, সে অন্য সমস্ত মানুষকে রেখে শুধুমাত্র আপনাকেই বেঁছে নিয়েছে।

স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন তার কিছু দোষ ত্রুটি আপনাকে বিরক্ত করে। কারণ, আপনারও এমন অনেক দোষ ত্রুটি রয়েছে।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন তার রান্না খারাপ হয়। কারণ, সে ভাল রান্নার চেষ্টা করেছে।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সকাল বেলায় তাকে উষ্কখুষ্ক দেখায়। কারণ, সে আবার আপানরই জন্য সাজগোজ করবে।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে আপনাকে সন্তানের লেখাপড়ায় সাহায্য করতে বলে। কারণ সে চায় আপনাকে সংসারের অংশ হিসেবে পেতে।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে জানতে চায় তাকে মোটা লাগছে কিনা। কারণ, আপনার মতামত তার কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ; এজন্য তাকে বলুন সে সুন্দর।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন তাকে সুন্দর দেখায়। কারণ সে আপনারই, তাই প্রশংসা করুন।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে তৈরি হতে দীর্ঘ সময় পার করে দেয়। কারণ সে চায় তাকে আপনার চোখে সবচেয়ে সুন্দর লাগুক।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে এমন কোন উপহার দেয় যা আপনার পছন্দ হয়নি। কারণ সে আপনাকে খুশি করতে চায়, তাই তাকে বলুন, ঠিক এমন উপহারই আপনার প্রয়োজন ছিল।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন তার মধ্যে কোন বদঅভ্যাস গড়ে ওঠে। কারণ আপনারও এমন অনেক বদঅভ্যাস রয়েছে; প্রজ্ঞা আর কোমলতার সাথে তার সেই বদঅভ্যাস পরিবর্তন করানোর সময় এখনো আপনার আছে।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে অকারণেই কাঁদে। তাকে বলুন সব ঠিক হয়ে যাবে।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে PMS বা মাসিক অবসাদ এ ভোগে। তার জন্য চকলেট আনুন, তার পায়ের পাতায় ও কোমরে মালিশ করে দিন, এবং তার সাথে নিছকই গল্প করুন (বিশ্বাস করুন এতে কাজ হয়!)
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যদি সে অসন্তোষজনক কিছু করে ফেলে। এরকম হতেই পারে এবং এর রেষ একসময় কেটেও যাবে।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে আপনার কাপড়ে ভুলবশতঃ দাগ লাগিয়ে ফেলে। একটি নতুন জামা আপানি এমনিতেও কিনতেন।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে আপনাকে বলে আপনার কিভাবে ড্রাইভ করা উচিৎ। সে শুধু চায় আপনি নিরাপদে থাকুন।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…যখন সে তর্ক করে। সে তাই চায় যা আপানাদের দুইজনের জন্যই ভাল হয়।
স্ত্রী কে ভালবাসুন…সে শুধু আপনারই। এটি ছাড়া তাকে ভালবাসার অন্য কোন বিশেষ কারণেরও প্রয়োজন নেই!!!
এই সবই নারীসুলভ স্বাভাবিক বৈশিষ্ট্য। আর স্ত্রী আপনার জীবনেরই একটি অংশ যাকে রানীর মত মর্যাদা দেওয়া উচিৎ।
মহানবী (সাঃ) নারীদের বিষয়ে উপদেশ দিয়েছেনঃ
• তোমরা স্ত্রীদের জন্য মঙ্গলকামী হও (বুখারী ৩৩৩১, মুসলিম ৪৭)
• তোমাদের মধ্যে ওই ব্যক্তি সবচেয়ে উত্তম যে তার স্ত্রীদের কাছে উত্তম (তিরমিজি ১১৬২)
বিদায় হজ্জ এ নবী (সাঃ) আল্লাহর প্রশংসা ও স্তুতি বর্ণনা করে উপদেশ ও নসিহত দান করে বলেনঃ
তোমাদের স্ত্রীদের সাথে সদ্ব্যবহার কর।…তোমাদের স্ত্রীদের উপর তোমাদের অধিকার রয়েছে, অনুরূপ তোমাদের উপর তোমাদের স্ত্রীদের অধিকার রয়েছে। তোমাদের অধিকার হল, তারা যেন তোমাদের বিছানায় ওই সব লোককে আসতে না দেয় যাদেরকে তোমরা অপছন্দ কর এবং তারা যেন ওই সব লোককে তোমাদের বাড়ীতে প্রবেশ করার অনুমতি না দেয় যাদেরকে তোমরা অপছন্দ কর। তোমাদের উপর তাদের অধিকার এই যে, তাদেরকে ভালরূপে খেতে-পরতে দেবে। [তিরমিজি ১১৬৩, ইবনু মাজাহ ১৮৫১; তাহকীক রিয়াযুস স্বালেহীন পৃষ্ঠা ১৬০]
সূত্র : কুর’আনের আলো

মোঃ আবুল বাশার

আমি একজন ছাত্র,আমি লেখাপড়ার মাঝে মাঝে একটা ছোট্ট পত্রিকা অফিসে কম্পিউটার অপরেটর হিসাবে কাজ করে,নিজের হাত খরচ চালানোর চেষ্টা করি, আমি চাই ডিজিটাল বাংলাদেশ হলে এবং তাতে সেই সময়ের সাথে যেন আমিও কিছু শিখতে পারি। আপনারা সকলে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পরার চেষ্টা করুন এবং অন্যকেও ৫ওয়াক্ত নামাজ পরার পরামর্শ দিন। আমার পোষ্ট গুলো গুরে দেখার জন্য ধন্যবাদ, ভাল লাগেলে কমেন্ট করুন। মানুষ মাত্রই ভুল হতে পারে,ভুল ত্রুটি,হাসি,কান্না,দু:খ,সুখ,এসব নিয়েই মানুষের জীবন। ভুলে ভড়া জীবনে ভুল হওয়াটা অসম্ভব কিছু নয়,ভুল ত্রুটি ক্ষমার দৃর্ষ্টিতে দেখবেন। আবার আসবেন।

2 thoughts on “স্ত্রীকে ভালবাসুন

  • March 29, 2014 at 6:13 pm
    Permalink

    assalamualaikum আশা করি ভাল আছেন আমি একজন বিদেশ প্রবাশি আমার নাম আব্দুল কুদ্দুস। আমি একটা শমসসা নিয়ে দিরগ দিন জাবত খুব পেরেশানির মাজে আছি। আমার শমসসা টা হল আমি দিরগ দিন জাবত আমার শালির শাতে সম্পর্ক তাকায় একপ্রজায় আমারা দুজন দুজনকে বিয়ে করার শিন্দান্ত নেই এটা কিছু লুকে জানা জানি হলে কিন্তু উনারা বলেন একশাতে দুইবুঙ্কে একশাতে বিয়ে করা জাবেনা তাহা শুনে আমাদের মনে অনেক কশ্তলাগ্ল এমন অবস্তায় আমার মাতায় কুনো কাজ ক্রতেচেনা কিন্তু আমি একতাটা আমার শ্যালীকে জানালে শে কিচুতেই মান্তেচে না ।কিন্তু আমি আমার স্ত্রী কে অনেক অনেক ভালবাসি অরদিকে তাকালে অরে ভুলতে পারি না আর শ্যালীর দিকে তাকালে অরে ভুলতে পারি না আমি কি করব কিছু বুজে উটতে পারতেচিনা তাঁর পর আমি গুমের ৬ টা বড়ী একশাতে খে আমি আমার স্ত্রিকে একবারে ৩ তালাক বলেছি বলার পর দিন আমার শ্যালীকে নিয়ে কৌড এভেট এভেডের মাইদ্মে বিয়ে করি তাঁর পর আমরা সরকারি কাজি সায়েবর মাইদ্মে কাবিন রিষটার করে নেই। তাঁর পর এটা নিয়ে আমার উপরে মামলা করে আমাকে জেলে পাঁটয়ে দে অরা আমি আমার শ্যালীকে নিয়ে ৬ দিন ছিলাম্‌।আমি জেলে ৫মাশ ছিলাম এই ৫মাশ ওরা দুজন তাদের বাবার বাড়ী চিল আমি জেলতেকে আশার পরে আমার বড় স্ত্রিকে আশ্তে বললে শে বলে আমি আশব জদি তুমি আমাকে নেও ।এখন আমি জেবাভেই হুক আমাই আমার বড় স্ত্রীকে এনেছি । এখন আমি জানতে চাই ওরে আমার স্ত্রী হিশাবে রাক্তে হলে শরিহত মতে আমার কি করতে হবে?? কিন্ত আমার শাতে আশার কারনে এর বাবা ওরে তেইজ্জ করে দিইয়েছেন এখন আমি কি করব আমাকে একটা শমাদান দিন { ইতি আব্দুল কুদ্দুস কাতার }

    • April 2, 2014 at 5:35 pm
      Permalink

      অলাইকুমুস সালাম, আবদুল কুদদুছ ভাই আপনার বিস্তারীত যা শুনলাম এবং চ্যাটে যা বললেন তাতে এবানে মাসালা নেয়া ঠিক হবে না, আপনি লিখিত আকারে আমাদের কাছে/মাদরাসায় চিঠি পাঠান, আপনাকে আবার লিখিত আকারে মাসালা পাঠিয়ে দেয়া হবে।

Leave a Reply