সমস্যার সমাধান চাই

আতিক, বয়স ২০। ঢাকা

আমার কিছু মানসিক সমস্যা আছে। আমি নামাজ পরিনা। কিন্তু আমি আমার নবী-রাসুল, ও আল্লাহকে খুবই শ্রদ্ধা করি। কিন্তু মাঝে মাঝে নবী রাসুলদের, তাদের সাহাবী ও নিকটজনদের ও আল্লাহকে নিয়ে অনেক খারাপ চিন্তা মাথায় আসে। অশ্লীল চিন্তাভাবনা আসে, কিন্তু আমি সেই চিন্তা গুলা আসতে দেই না। প্রান্প্রনে চেষ্টা করি এগুলো মাথা থেকে দুরে রাখার। তারপরেও কিছু চিন্তা চলেই আসে। আমি সেগুলোকে যতসম্ভব মাথা থেকে তারাই। আমি এই চিন্তা গুলো নিয়ন্ত্রণ করতে পারছিনা। প্রতিনিয়ত আমি যুদ্ধ করে যাচ্ছি।   আমার প্রশ্ন হলো, আমি তো ইচ্ছে করে এসব চিন্তা আনি না মাথায়। এগুলো আমার মানসিক সমস্যার ফলে আসে। এখন এইসব চিন্তার জন্যে কি আমার গুনাহ হবে ?? আমার খুব অপরাধী মনে হয় নিজেকে। একটু জানাবেন দয়া করে।

আর মানসিক সমস্যা সমাধানের কোনো ইসলামিক পদ্দতি জানা থাকলে জানাবেন। আমি খুবই কষ্টের মধ্যে আছি। দুয়া করবেন।

নাম : আতিক
বয়স ২০।
Gender : Male
ঢাকা

12 thoughts on “সমস্যার সমাধান চাই

  • November 4, 2013 at 12:08 pm
    Permalink

    আসসালামু আলাইকুম আতিক ভাই ।আমি প্রথমেই বলবো আপনি আজ থেকে নিয়মিত নামাজ আদায় করুন এবং তাওবা করে নিন অতপর
    নিয়মিক নামাজ আদায় ,নাজায়েজ কাজ-কর্ম থেকে দূরে থাকুন ,অশ্লীলতাকে নিজের কাছ থেকে দূরে রাখুন ,ইসলামিক জ্ঞান অর্জনে নিজেকে মনযোগী করুন ।আস্তে আস্তে দেখবেন আপনার বর্তমান সমস্যা দূর হয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ

    • November 5, 2013 at 3:36 am
      Permalink

      Aynal bhaiya. Olaikum-Assalam and thank you for your comment. kintu amar proshno holo etar jonne ki amar gunah hobe?? ami to iccha kore kisu korina…borong aro juddho kori eishob chintar biroddhe..amar rog ta ke OCD bola hoy english e, google e search dilei bujhben. Allah ki amake shasti diben?? aishob to amar niyontron e nei..tarporo?? 🙁

      • November 14, 2013 at 4:44 pm
        Permalink

        @AtikSakeba: ধন্যবাদ আপনার মূলবান প্রশ্নের জন্য। এখানে কিছু কথা আছে। প্রথমে আমার পরিচয় দেই, আমি মোঃ আবুল বাশার, এই সাইটেরই একজন ভিজিটর বা এ্যডমিনও বলতে পারেন। আমি বর্তমানে, একটি কওমি মাদ্রাসার ছাত্র। আমার পরিচয় দিলাম যাতে করে আমার কথার উপরে আপনার একটু হলেও আস্তা আসে। এবার আসি আপনার উত্তরে।
        ১। আপনি সব সময় নামাজ আদায় করুন, কারণ নামাজ সকল অশ্লীল কাজ থেকে বিরত রাগে, আর আপনার মোনের ভিতরে যে সকল প্রশ্ন যাগে এটা আপনি যাগান না, এটা শয়তান যাগিয়ে দেয়, যাতে করে আপনি আল্লাহর বিরুদ্ধে চলে যান, এবং নাস্তিকতার মত চলেন, এটা শয়তান এবং নফসে আম্মার কাজ। আর যে লোক নামাযী সে লোককে শয়তান সহজে ধোকা দিতে পারে না। নামাজ’ই হল সব থেকে বড় ঔষধ, তাই নামাজ পড়ুন, নয়তো দেখবেন এখন পর্যন্ত আপনি নিজের সাথে যুদ্ধ করে জয়ি হতে পারতেছেন কিন্তু কখন যে হেরে যাবেন নিজেও বুঝতে পারবেন না, আর নামাজতো মুসলমান হিসেবে পড়তেই হবে এটা বাধ্যতা মূলক। এখানে আয়াত লিখলাম না، একটু ব্যবস্ত থাকার কারণ। তবে অর্থটা বলিঃ কিয়ামতের দিন সর্ব প্রথম নামাযেরই হিসাব হইবে। এটা আশা করি আপনিও যানেন। আর নামাজ না পরে আপনি যদি তাদের জন্য জীবনও দিয়ে দেন তারপরও আপনি ঈমানদার হতে পারবেন না، তবে আল্লাহ যদি নিজ দয়ায় মাফ করেন সেটা বিভন্ন কথা।
        এরপর আসুন প্রশ্ন ২। মানুষের মস্তিস্ক কখনও চুপ করে বসে থাকে না، একটা না একটা কাজে লেগেই থাকে, এক ভাল কাজে অথবা খারাপ কাজে, তাই আপনি যদি এটাকে ভাল কাজের মধ্যে ব্যবহার না করে থেমে থাকেন তাহলে সেটা অটোমেটিক খারাপ চিন্তা ভাবনা এসে যাবে, তাই সব সময় ভাল কাজে/চিন্তায় লাগিয়ে রাখবেন, সময় পেলে ইসলামি বই/পস্তুক পড়বেন, বড় বড় আল্লাহর অলিদের জীবনি পড়বেন, তাহলে দেখবেন এই সকল চিন্তা ভাবনা দূর হয়ে যাবে। আর এই রকম খারাপ চিন্তা আসলে একটা দোয়া আছে সেটাও পড়বেন। দোয়াটা এখন আমি একটু ব্যস্ত তাছাড়া দোয়াটা একটু হালকা বড় তাই লিখতেও বেশি সময় লাগবে, এ জন্য লিখলাম না, পরে সময় পেলে লিখে দিব, তার আগে আপনি যদি পারেন কোন আলেমের কাছ থেকে জেনে নিতে পারেন।
        প্রশ্ন ৩। আমার জ্ঞান অনুসারে এটার চিন্তা যা আপনি মানুষের কাছে বলতেছেন না, বা কোথাও প্রয়োগ করারও চেষ্টা করেন না, তাতে করে গুনা হবে না। কিন্তু যদি এই চিন্তাদ্বারা কাহাকেও উৎসা করেন এবং সেটা দ্বারা কোন ক্ষতি হয় তাহলে তাতে গুনা হবে।

  • November 15, 2013 at 12:47 pm
    Permalink

    @মোঃ আবুল বাশার, ভাইয়া ধন্যবাদ সাহয্য করার জন্নে। দুয়া টা কি পারলে জানাবেন সময় করে। মাঝে মাঝে এইসবচিন্তার বিরদ্ধেযুদ্ধ করতে করতে মাথা ধরে যেত। মনে হত মারা যাব। এইটা কে ও সি ডি বলে ডাক্তার রা। এটা মানসিক রোগএকটা। প্লিজ দুয়া করবেন যেন আমি সুস্থ হয়ে যাই। আর আল্লাহ যাতে আমাকে এইজন্ শাস্তি না দেন। ধন্যবাদ ভাইয়া। দুয়াটা জানাবেন। কারন আমার কোন আলেম পরিচিত নেই।

  • December 4, 2013 at 7:20 pm
    Permalink

    Bhai likhe dilen na to Dua ta.. please help! 🙁

    • December 6, 2013 at 7:18 am
      Permalink

      @AtikSakeba: দুঃখিত ভাই বেশি দেরি হওয়ার কারনে, আমার পরীক্ষার জন্য বেশি সময় দিতে পারছি না, আমি চেয়ে ছিলাম, টাইপ করে দিব, কিন্তু আমার আরবি লেখাতে বেশি একটা হাত চালু/গতি নেই, তাই লেখা হচ্ছে না সময় করে, বাংলা হলেতো সময় লাগত না,। যাক কিছুক্ষনের মধ্যে হাদীস থেকে এস্কান করে দিতেছি। অপেক্ষা করুন।

  • December 10, 2013 at 10:32 am
    Permalink

    আতিক ভাই@ আল্লাহ আপনাকে সুস্থ্য হওয়ার তাওফিক দিক।
    ইসলাম অনিছাকৃত কোন পাপের জন্য আপনাকে পাপী বলেনা,বরং আপনার ইচ্ছাকৃত পাপের জন্যই আপনাকে পাপী বলে।আপনাকে কিছু প্ররামর্শ দিচ্ছি মানলে সমাধান পাবেন ইনশাআল্লাহ।
    ১-যদি আপনার এই মানসিক সমস্যা সকল ক্ষেত্রে হয় তাহলে খুব দ্রুত একজন অভিজ্ঞ ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।আর যদি এমন হয় যে,এটা শুধু ইসলাম নিয়েই সীমাবদ্ধ তাহলে আপনি খুজে বের করুন কোন ব্যাপারে আপনার খারাপ চিন্তা আসছে।
    ২-এইবার সেগুলো নোট করুন।দেখুন আপনি যা চিন্তা করছেন তা সঠিক কিনা?ইসলাম সম্পর্কে অজ্ঞতাই/কম জানাই আপনার এই চিন্তার মূল কারন।যদি আপনি ভালো কোন ইতিহাসের বই থেকে সাহাবায়ে কেরামের জীবনী পড়ে থাকেন তাহলে তাদের ব্যাপারে কোন মন্দ ধারনা আসবেনা।আপনি আগে সেগুলো সমাধান করুন।
    ৩-অবসরতা থেকে দূরে থাকুন।যে কোন কাজে লিপ্ত থাকুন।বিশেষ করে কোরান তেলাওয়াত করুন।যত বেশী কোরান পড়বেন আল্লাহ আপনার মনকে তত বেশী আলোকিত করবেন।
    ৪- কোন এক রাতে ঘুম থেকে উঠে অযু করে আল্লাহর কাছে খুব কেঁদে এই সমস্যার কথা বলুন।আশা করি তিনি আপনাকে এই সমস্যা থেকে মুক্তি দিবেন।
    ৫-দোয়াটা হল,

    لاَ حَوْلَ وَ لاَ قُوَّةَ اِلَّا بِاللّٰهِ الْعَلِيِّ الْعَظِيْمِ

    এটা না হলে এটা।এই দুইটাই অধিক শক্তিশালী।
    اَعُوْذُ بِاللّٰهِ مِنَ الشَّيْطٰنِ الرَّجِيْمِ

    আল্লাহ আপনাকে সকল পাপ থেকে দূরে রাখুন এবং এই উদ্ভূত সমস্যা থেকে মুক্তি দিক।আমীন।

  • December 14, 2013 at 3:22 pm
    Permalink

    আব্দুল্লাহ আলিয়া ভাইকে অনেক ধন্যবাদ।হাতে সময় থাকলে আমাদের সাইটে সময় দিতে অনুরোধ করছি।আল্লাহ সর্বাধিক ভালো জানেন আমাদের সম্পর্কে।

  • January 10, 2014 at 9:43 pm
    Permalink

    আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহ মাতুল্লাহ।
    আমিও আব্দুল্লাহ আলিয়া ভাই এর সাথে একমত যদি সর্ব ক্ষেত্রেই আপনার মানুষিক সমস্যাটা হয়েথাকে তবে মানুষিক রোগের চিকিৎ করতে হবে।
    ১।যদি আপনাদের কাছে ভালো কোনো মানুষিক রোগের চিকিৎসা কেন্দ্রের তত্থ্য থাকে তবে সেখানে দেখাবেন ।আর না হয় আমার জানামতে ফার্গেট বাইতুশ শরফ মসজিদের নিচে #ব্রেন্ড এন্ড্র মাইন্ড হসপিটাল নামের ভালো একট হসপিটাল আছে সেখানে আপনি দেখাতে পারেন
    ২।আর যদি শুধুই ঈমানের ক্ষেত্র এই ওয়াছওয়াছাটা হয় তাহলে এ চারটা আমল করতে হবে মুসলিম শরিফের হাদিছে এ চারটা আমলের কথা বলাহয়েছে ।
    ১।আউজুবিল্লাহি মিনাশ শাইতানির রাজিম পড়তে হবে।
    ২।আমানতু বিল্লাহ্ পড়ে ঈমানকে নবায়ন করতে হবে।
    ৩।এই চিন্ত বাদ দিতে হবে।
    ৪।অন্য কোন বিশয়ের দিকে মনকে ঘুরিয়ে দিতেহবে।
    আর সব সময় আল্লার কাছে দোওয়া চাইতে হবে আল্লাহ যেন সুস্থ করেদেন।
    ওয়াল্লাহু আড়লাম।

  • September 22, 2016 at 6:32 pm
    Permalink

    khub vlo.. sukria vai.. ei problem er solve er jnno.. dua korben..

Leave a Reply