হাদীস (পর্ব-৩৪) (পবিত্র রমজানের হাদীস)

পরম করুনাময় আল্লাহ্ এর নামে শুরু করলাম

 

আসসালামু আলাইকুম, কেমন আছেন সবাই? আশা করি ভালই আছেন, আমি ও আমরা আপনাদের দোয়ায় এবং আল্লাহ্র অশেষ রহমতে অনেক ভাল আছি।বেশি হাদীস দেই না, কারন আমার মত অনেক লোক আছে, যারা বেশি লেখা দেখলে সেটা পড়তে চায় না, তাই অল্প কয়েকটা হাদীস দিলাম, যারা যত ব্যস্তই থাকুক এই অল্প কয়টি হাদীস পড়ে নিতে পারবে, এবং অল্প হবার কারনে মনে রাখতে পারবে আবার তা আমল করারও চেষ্টা করবে।

 

পর্ব এক     পর্ব ০২     পর্ব ০৩     পর্ব ০৪     পর্ব ০৫     পর্ব ০৬     পর্ব ০৭

পর্ব ০৮     পর্ব ০৯     পর্ব ১০     পর্ব-১১     পর্ব-১২     পর্ব-১৩     পর্ব-১৪

পর্ব ১৫     পর্ব ১৬     পর্ব-১৭     পর্ব-১৮     পর্ব-১৯     পর্ব-২০     পর্ব-২১

পর্ব-২২     পর্ব-২৩     পর্ব-২৪     পর্ব-২৫     পর্ব-২৬     পর্ব-২৭     পর্ব-২৮

পর্ব-২৯     পর্ব-৩০     পর্ব-৩১     পর্ব-৩২     পর্ব-৩৩

 

#হুযূর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ ফরমাইয়াছেন, অনেক রোযাদার ব্যক্তি এমন আছে, যাহাদের রোযার বিনিময়ে অনাহারে থাকা ব্যতীত আর কিছুই লাভ হয় না। আবার অনেক রাত্রি জাগরণকারী এমন আছে, যাহাদের রাত্রি জাগরণের কষ্ট ছাড়া আর কিছুই লাভ হয় না। (ইবনে মাজাহ, নাসাঈ, ইবনে খুযাইমাহ, হাকিম)

ফায়দাঃ এই হাদীসের ব্যাখ্যা সম্বন্ধে ওলামায়ে কেরামের কয়েকটি অভিমত আছে।

একঃ ইহা দ্বারা ঐ ব্যক্তিকে বুঝানো হইয়াছে, যে সারাদিন রোযা রাখিয়া হারাম মাল দ্বারা ইফতার করে; রোযা রাখার দ্বারা যে পরিমাণ সওয়াব হইয়াছিল হারাম মাল খাওয়ায় গোনাহ উহা হইতে বেশি হইয়া গেল। সুতরাং দিনভর শুধু অনাহরে থাকা ছাড়া তাহার আর কোন লাভ হইল না।

দ্বিতীয় অভিমত হইল, ঐ ব্যক্তিকে বুঝানো হইয়াছে, যে রোযা রাখে; কিন্তু গীবত-শেকায়েত অর্থাৎ অন্যের দোষ-চর্চায় লিপ্ত থাকে। ইহার বিরবণ পরে আসিতেছে।

তৃতীয় অভিমত হইল, ঐ ব্যক্তিকে বুঝানো হইয়াছে, যে রোযা রাখিয়াও গোনাহ ইত্যাদি হইতে বাঁচিয়া থাকে না। হুযূর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের এরশাদ ও বাণীসমূহ খুবই ব্যাপক ও বহুল অর্থবিশিষ্ট হয়; এইসব অভিমত এবং আরও অন্যান্য অভিমতও এই হাদীসের অন্তর্ভূক্ত রহিয়াছে।

এমনিভাবে রাত্রি জাগরণের অবস্থা। সারা রাত্র জাগিয়া কাটাইল; কিন্তু আমোদ-ফুর্তির জন্য একটু গীবত করিল কিংবা অন্য কোন আহাম্মকী কাজ করিল, যাহাতে তাহার সমস্ত রাত্রি-জাগরণ বেকার হইয়া গেল। যেমন ফজরের নামাযই কাজা করিয়া দিল অথবা শুদু মানুষকে দেখানোর জন্য বা সুনাম অর্জনের জন্য রাত্রি-জাগরণ করিল ফলে উহা বেকার হইল।

ভাল লাগলে কমেন্টে জানাতে ভুলবে না…

ভুলে ভরা জীবনে ভুল হওয়াটা অসম্ভব কিছু নয়,যদি আমার লেখার মাঝে কোন ভুলত্রুটি থাকে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। ধন্যবাদ সবাই ভাল থাকবেন।

মোঃ আবুল বাশার

আমি একজন ছাত্র,আমি লেখাপড়ার মাঝে মাঝে একটা ছোট্ট পত্রিকা অফিসে কম্পিউটার অপরেটর হিসাবে কাজ করে,নিজের হাত খরচ চালানোর চেষ্টা করি, আমি চাই ডিজিটাল বাংলাদেশ হলে এবং তাতে সেই সময়ের সাথে যেন আমিও কিছু শিখতে পারি। আপনারা সকলে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পরার চেষ্টা করুন এবং অন্যকেও ৫ওয়াক্ত নামাজ পরার পরামর্শ দিন। আমার পোষ্ট গুলো গুরে দেখার জন্য ধন্যবাদ, ভাল লাগেলে কমেন্ট করুন। মানুষ মাত্রই ভুল হতে পারে,ভুল ত্রুটি,হাসি,কান্না,দু:খ,সুখ,এসব নিয়েই মানুষের জীবন। ভুলে ভড়া জীবনে ভুল হওয়াটা অসম্ভব কিছু নয়,ভুল ত্রুটি ক্ষমার দৃর্ষ্টিতে দেখবেন। আবার আসবেন।

One thought on “হাদীস (পর্ব-৩৪) (পবিত্র রমজানের হাদীস)

  • July 10, 2013 at 9:21 am
    Permalink

    ধন্যবাদ বাশার ভাই ! সুন্দর হয়েছে । আর শিরোনামে হাদীসের বিষয় বস্তু ( রমজানের হাদীস ) লিখে খুব ভালো করেছেন, এতে প্রয়োজনিয় হাদীস ভিতরে না ঢুকেই খুঁজে নিতে পারবো ।

Leave a Reply