ফেসবুকের অশ্লীল পেজের বিরুদ্ধে আমাদের যেভাবে যুদ্ধ করতে হবে।

ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে উঠেছে কিছু অশালীন ১৮+ নামক বস্তাপচা ফেসবুক পেজ। এসব পেজ চালাচ্ছে কিছু বস্তির ছেলে পেলে। এসব অশ্লীল নোংরা পেজ মেয়েদের অশ্লীল অঙ্গ-ভঙ্গী আর পর্ণ সাইটের ছবি ডাউনলোড করে পেজে দিয়ে ১ লাইক= ১ থাপ্পড় এভাবে পোস্ট দিয়ে যেন মেয়েদের অপমান করে দেশ উদ্ধারে নেমেছে !! আর কিছু ফ্যান গনহারে লাইক দিয়ে যেন ঐ মেয়েকে হেদায়েত দিয়া ফেলতেছে !!

যারা লাইক দিচ্ছে তারাও বুঝতেছেও না, তারাও অশ্লীলতার প্রচারক হিসেবেই কাজ করছে। কিভাবে জানেন??? আপনারা বেশিরভাগ ফেসবুক ইউজাররাই জানেন না, ফেসবুকে আপনারা যে ছবিই লাইক বা কমেন্ট করুন না কেন, তা অন্য ফ্রেন্ডদের হোমপেজে চলে যায়, যে আপনি ঐ ছবিতে লাইক/কমেন্ট করেছেন। এতে আজে বাজে পেজগুলোর প্রসার আরও বৃদ্ধি পায়।।

এতে আপনার ক্ষতি মূলত দুটি। এক তো অশ্লীল পেজের প্রচারক হিসেবে গুনাহর ভাগী হলেন, অন্য দিকে আপনার ফ্রেন্ড লিস্ট এ থাকা অন্য মানুষগুলোর কাছে আপনার সম্পর্কে খুবই নিম্নমানের একটা ধারনা চলে যায়।।

তবে অবাক করা বিষয় হলো, এসব পেজে দেওয়া প্রায় সবগুলো ছবিই ইন্ডিয়ান মানুষের, যা বাংলাদেশী বলে চালিয়ে দিচ্ছে !! আমরা সবাই জানি, ইন্ডিয়ানদের লাইফ স্টাইল কেমন।। ওরা অনেক খোলা-মেলা চলাফেরা করে, কিন্তু আমাদের দেশে এখনো অতটা বাজে অবস্থায় যায় নি। তবে এসব পেজের অশ্লীল পোস্টের কল্যাণে সে অবস্থায় যেতে খুব বেশিদিন লাগবেও না। মিথ্যার এসব প্রোপাগান্ডা আর কতো দিন?? কতো দিন এসব লাইক ব্যাবসা??

ওইসব পেজের এডমিনদের একটা প্রশ্ন করতে চাই, “আচ্ছা আপনারা কি আমাদের পরিবারের মাঝে বসে একটু ফেসবুক ব্যাবহার ও করতে দিবেন না??

“এই তো সেদিন বাবাকে একটা লেখা দেখাবো বলে ল্যাপটপের সামনে বসালাম। কিছুক্ষণ পর হুট করে “ওমক লাইক ওমক পেজের ছবি ”- এভাবে একটা বাজে ছবি হোমপেজে চলে আসলো। আমার সম্পর্কে বাবার খুব বাজে একটা ধারনা চলে আসলো। অথচ ঐ পেজ কোন দিন লাইক দেওয়া তো দূরের কথা, ঐ দিনের আগে চোখেও দেখি নাই।

আরেকদিন বোন লন্ডনে থাকে বলে, ফেসবুকে ছবি আপলোড দেওয়ার পর আম্মাকে দেখাচ্ছিলাম। হটাত করে একটু হোমপেজে গেলাম আর একটু নিচে নামতেই চরম বাজে একটা অবস্থার সম্মুখীন হলাম। আম্মার তখন এটাই ধারনা জন্মাল, সারাদিন ফেসবুকে বসে আমি এসব আজে বাজে ছবিই দেখি!!!

হয়তো এমন সমস্যায় আপনারাও পড়েছেন কিংবা পড়তে যাচ্ছেন। তাই এখনি সময় এসব অশ্লীল পেজের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর, সময় এসেছে “জিহাদ” ঘোষণা করার। ফেসবুকে এক সময় মানুষ পেজ খুলতো সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি নিয়ে। আর এখন??

আমাদের সামাজিক জীবনে ফেসবুক এখন একটা পার্ট হয়ে দাঁড়িয়েছে, তাই একে সুন্দর রাখাও আমাদের নিজেদের স্বার্থেই প্রয়োজন। তবে কিভাবে??

–> প্রতিজ্ঞা করুন, এখন থেকে ১৮+ কিংবা অশ্লীল কোন পেজে লাইক দিবেন না কিংবা আগে লাইক দেওয়া পেজ গুলো আনলাইক করবেন।

ইসলামিক এমবিট টিম

এসো হে তরুন,ইসলামের কথা বলি

Leave a Reply