চেয়ারে বসে নামাজ পড়ার বিধান

উত্তর : বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম

এক.

যে ব্যক্তি জমিনে সিজদা করতে অক্ষম তার ব্যপারে হুকুম হল, সে ইশারায় সিজদা আদায় করবে। এমন মাযূরব্যক্তি যদি অন্য কোন কারণে

চেয়ারে বসে নামায আদায় করেন তাহলেও

তিনি ইশারায়ই সিজদা করবেন,সামনে তখতা বা টেবিল রেখে তাতে সিজদা করার প্রয়োজন নেই। যদি কেউ এমনটি করে তা সিজদা বলে

গণ্যহবে না। অবশ্য এর দ্বারা যেহেতু ইশারার

কাজ হয়ে যায় ফলে তার সিজদা আদায় হয়ে যাবে।

চেয়ারে বসে সামনে তখতা বা টেবিল ইত্যাদির উপর কপাল রাখাকে দুই কারণে সিজদা বলা সহীহ নয়। ১.সিজদার জন্য শর্ত হল, উভয়

হাঁটু জমিনের উপর রাখা। ২. সিজদার সময়

কপালের অংশ কোমরের অংশ থেকেনীচু থাকা দরকার। চেয়ারে বসে সামনের কোন কিছুর উপর কপাল রাখলে উল্লিখিত উভয় শর্ত

পাওয়া যায় না।সুতরাং সেটাকে হাকীকী সিজদা

(নিয়মতান্ত্রিক সিজদা) বলা ঠিক নয়।

আর আপনি মাকতাবা দারুল উলূম করাচী থেকে প্রকাশিত রিসালার বরাতে যে কথা লিখেছেন, তা যদিও দারুলউলূম করাচীরই কিছু

ফতওয়ায় উল্লেখ আছে, কিন্তু সম্প্রতি এই মাসআলার

বিষয়ে উসতাযে মুহতারাম হযরতমাওলানা মুফতী মুহাম্মাদ তাকী উসমানী দামাত বারাকাতুহুমের এক সদ্য লিখিত ফতওয়া আমাদের

হস্তগতহয়েছে। যাতে দারুল উলূম করাচী-এর

দারুল ইফতার অন্যান্য হাযারাতের দস্তখতও রয়েছে। তাতে হযরতদামাত বারাকাতুহুম আগের ফতওয়া থেকে ‘রুজুর’ (প্রত্যাহারের)

ঐ লেখায় হযরত ‘‘ফাতওয়া শামী’’র ঐ‘

ইবারাতের’ (বক্তব্য) উপর বিষদ আলোচনা করেছেন যার ভিত্তিতে দারুল উলূমের আগের ফতওয়া দেয়াহয়েছিল। এবং তিনি

এটা প্রমাণ করেছেন

যে, ঐ ইবারাতের ভিত্তিতে এই মাসআলার

দলীল দেয়া সিদ্ধ নয়।তিনি স্পষ্ট লিখেছেন :

“لہذا كرسى پر بيٹهكر سامنے كسى چيز پر سجدہ كرنے كو “سجدۂ حقيقيہ” (باقاعدہ سجدہ) كہنا درست نہين”

‘‘… তাই চেয়ারে বসে সামনে কোন কিছুর উপর সিজদা করাকে ‘হাকীকী সিজদা’ (নিয়মতান্ত্রিক সিজদা) বলাঠিক নয়।’’

তিনি আরও লিখেছেন,

كرسى پر بيٹهنے كى صورت پر علامہ شامى

رحمة اللہ عليہ كى بات صادق نہيں آتى، اوراس كى بنياد پر سامنے كى كسى چيز پر سجدہ كرنے كو واجب نہيں كہا جا سكتا ہے.

‘‘চেয়ারের উপর বসে নামায আদায়কারীর ক্ষেত্রে আল্লামা শামীর ঐ বক্তব্য প্রযোজ্য নয় এবং এর ভিত্তিতেসামনে কোন কিছু

রেখে তার উপর সিজদা করাকে ওয়াজিব বলা যায় না।’’

এই সদ্য লিখিত ফতওয়ার শেষে হযরত লিখেছেন,

اس تحرير سے پہلے دار

الافتاء جامعہ دار العلوم كراچى سے جارى ہونے والے فتاوى ميں كوئى جزء اس تحرير كے خلاف ہےاس سے رجوع كيا جاتا ہے.

‘‘এই লেখার পূর্বে দারুল ইফতা, জামেয়া দারুল উলূম করাচী থেকে জারিকৃত ফতওয়ার যে সকল অংশ এইলেখার খেলাফ

হয় তার থেকে ‘রুজু’ করা হচ্ছে।’’ অর্থাৎ তা প্রত্যাহার করা হল।

এই ফতওয়ার উপর তারিখ দেয়া আছে ২ রবিউস সানী ১৪৩৪হিজরী।

আর আপনি ঐ রিসালার বরাতে যেই ফতওয়ার কথা উল্লেখ করেছেন তা বর্তমান ফতওয়ার চেয়ে অনেক আগেরতারিখের।

বর্তমান ফতওয়ায় যাঁদের সম্মতিসূচক দস্তখত রয়েছে :

1.    আব্দুর রউফ সাখ্খারবী (মুফতী)

2.   মাহমুদ আশরাফ উসমানী (মুফতী)

3.  আব্দুল মান্নান (নায়েবে মুফতী)

4.    আব্দুল্লাহ [বরমী] (সদস্য)

5.   আসগার আলী রাববানী (সদস্য)

এই ফতওয়ায় দারুল ইফতার সীলের মধ্যে ফতওয়া নাম্বার লেখা আছে : ৪১/১৫০৮।

দুই.

যে ব্যক্তি জমিনে সিজদা করতে সক্ষম নয় তার ব্যাপারে হানাফী ফকীহগণের প্রসিদ্ধ মত ওটাই যা আপনি দরসীকিতাবের

হাওয়ালায় লিখেছেন যে, ‘‘এমন ব্যক্তির উপর দাড়িয়ে নামায আদায় করা জরুরী নয় বরং সে বসেইশারায় নামায আদায়

করবে।’’

এ বক্তব্যটি যদিও একেবারে দলীলবিহীন নয়, কিন্তু অনেক মুহাক্কিক ফকীহের দৃষ্টিতে এই মাসআলায় দলীলেরবিচারে

ফিকহে হানাফীর ঐ বক্তব্য বেশি শক্তিশালী যা ইমাম আবু

হানিফার রাহ. শাগরিদ ইমাম যুফার ইবনেহুযাইল রাহ.-এর মাযহাব। আর এটাই বাকী তিন ইমামের (ইমাম মালেক

রাহ., ইমাম শাফেয়ী রাহ. এবংইমাম আহমাদ ইবনে হাম্বল রাহ.)

মাযহাব। আর তা হল, এমন ব্যক্তি ( যে ব্যক্তি জমিনের উপর সিজদা করতেঅক্ষম) যদি দাড়িয়ে নামায আদায় করতে

সক্ষম হয় তাহলে তাকে দাড়িয়েই নামায আদায় করতে হবে।

আরযেহেতু সে সিজদা করতে অক্ষম তাই সে ইশারায় সিজদা করবে (যদি রুকু করতেও অক্ষম হয় তাহলে রুকুওইশারায়

আদায় করবে)। জমিনে সিজদা করতে অক্ষম হওয়ার কারণে

দাড়ানোর ফরয ছাড়া যাবে না।

মুফতী মুহাম্মাদ তাকী উসমানী দামাত বারাকাতুহুমের যে নতুন ফতওয়ার কথা উপরে আলোচনা হয়েছে তাতেতিনি

এই মাসআলার উপর বিশদ আলোচনা করেছেন এবং ‘ফাতহুল

কাদীর’ খ. ১ পৃ. ৪৬০, ‘আননাহরুলফায়েক খ. ১ পৃ. ৩৩৭ এবং ‘ইলাউস সুনান খ. ৭ পৃ. ২০৩ ইত্যাদির বরাতে

দালায়েলের আলোকে এই ‘কওল’ (বক্তব্য)-কেই শক্তিশালী বলেছেন যে, কিয়ামের ফরয আদায় থেকে শুধু ঐ ব্যক্তি ছাড়

পাবে যে দাড়িয়ে নামাযআদায়

করতে অক্ষম। সিজদা করতে অক্ষম হওয়ার কারণে কিয়াম-এর

ছাড় পাবে না। তিনি সেখানেবিশদভাবে ঐ কথারও খন্ডন করেছেন যে, শুধু সিজদার জন্য কিয়াম ফরয করা হয়েছে।

তাই সিজদা করতেঅক্ষম হলেই কিয়াম জরুরী থাকে না।

তিনি একাধিক দলীল দ্বারা এ কথা প্রমাণ করেছেন যে, কিয়াম নামাযেরএকটি স্বতন্ত্র ফরয তা শুধু সিজদার জন্য নয়।

এমন কি হযরত মাওলানা মুহাম্মাদ তাকী উসমানী দামাত বারাকাতুহুম ঐ ফতওয়ায় এ কথাও লিখেছেন যে, যেব্যক্তি

দাড়িয়ে নামায শুরু করতে পারে কিন্তু সিজদার জন্য জমিনে বসার

পর আবার দাড়াতে তার অনেক কষ্টহয়, এমন ব্যক্তিও কিয়াম (দাড়িয়ে নামায পড়া) একেবারে ছাড়বে না। বরং প্রথম

রাকাত দাড়িয়ে আদায়করবে। এরপর দাড়াতে কষ্ট হওয়ার

কারণে বাকী নামায বসে আদায় করবে।

এর সাথে সাথে হযরত দামাত বারাকাতুহুম এ বিষয়টি অত্যন্ত স্পষ্টভাবে বলেছেন যে, জমিনের উপর সিজদাকরতে অক্ষম

কোন মুসল্লী যদি ফিকহে হানাফীর প্রসিদ্ধ মত অনুযায়ী

আমল করে এবং পুরা নামায বসে আদায়করে এবং  ইশারায় রুকু সিজদা করে তাহলে তার নামায ফাসেদ হয়েছে বলব না।

কারণ, গায়রে মুজতাহিদের(মুজতাহিদ নয় এমন) জন্য

মুজাতাহিদের ‘কওল’ও (বক্তব্য) দলীলে শরয়ী। সুতরাং যে ব্যক্তি সে অনুযায়ীআমল করেছে আমরা বলব না তার নামাজ

ফাসেদ হয়েছে।

(لأن المسألة من الاجتهاديات، و القول المشهور و إن كان مرجوحا من

حيث الدليل و لكنه ليس من الزلات المحضة، فله بعض الأدلة أيضا، مذكور في “مختصر اختلاف العلماء” ج ١ ص ٣٢٥-عبد المالك)

তিন.

যে ব্যক্তি শুধু আরামের জন্য অথবা মামুলি কষ্টের বাহানায় চেয়ারে নামায আদায় করছেন তিনি মস্ত বড় ভুলকাজ করছেন। এভাবে

নামায আদায় করার দ্বারা তার নামাযই হবে না। তার

উপর ফরয, দাড়িয়ে নামায আদায়করা এবং যথা নিয়মে রুকু সিজদা আদায় করা।

আর যে ব্যক্তি জমিনের উপর বসে নামায আদায় করতে সক্ষম তার জন্য শুধু এই বাহানায় চেয়ারে বসে নামাযআদায় করা ঠিক নয়

যে, সে দাড়িয়ে নামায আদায় করতে বা রুকু সিজদা

করতে অক্ষম। বরং এ ধরণেরলোকেরা জমিনে বসে নামায আদায় করবে। চেয়ারে বসে নামায আদায় করবেন শুধু ঐ লোকেরা

যারা জমিনেবসে নামায আদায় করতে অক্ষম।

হযরত মাওলানা মুহাম্মাদ তাকী উসমানী দামাত বারকাতুহুম তার সদ্য লেখা এ ফতওয়ায় চেয়ারে বসে নামাযআদায় করার ক্ষতির

দিকগুলো আলোচনা করতে গিয়ে বলেন, ‘জমিনে বসে নামায আদায় করার শক্তি থাকাসত্ত্বেও চেয়ারে বসার যে প্রচলন দেখা যায়

তাতে বিভিন্ন দিক থেকে আপত্তি রয়েছে।

১. মাযুর ব্যক্তিদের জন্য জমিনে বসে নামায আদায় করাই উত্তম ও মাসনূন তরীকা। এর উপরই সাহাবায়েকেরাম রাযিয়াল্লাহু

আনহুম এবং পরবর্তীদের আমল চলে আসছে। চেয়ারে বসে

নামায আদায় করার রেওয়াজকেবল শুরু হয়েছে। খায়রুল কুরূনে এর নযীর নেই। অথচ সে যুগে মাযুরও ছিল চেয়ারও ছিল।

২. যে ব্যক্তি শরীয়তের দৃষ্টিতে মাযুর নয়, অর্থাৎ কিয়াম, রুকু সিজদা করতে সক্ষম, তার জন্য জমিনে বা চেয়ারেবসে ফরয এবং

ওয়াজিব নামায আদায় করাই জায়েয নেই। অথচ কখনো

কখনো দেখা যায় এ ধরণের সুস্থব্যক্তিও সামনে চেয়ার পেয়ে চেয়ারে বসে নামায আদায় করে নেয়। ফলে তার নামাযই হয় না।

৩. চেয়ারের ব্যবহারের কারণে কাতার সোজা করা ও সোজা রাখার ক্ষেত্রে অনেক সমস্যার সৃষ্টি হয়। অথচ মিলেমিলে দাড়ানো ও

কাতার সোজা করার বিষয়ে হাদীস শরীফে জোর তাকীদ

এসেছে।

৪. বিনা প্রয়োজনে মসজিদে চেয়ারের অধিক্যের কারণে তা নাসারাদের গির্জা ও ইহুদীদের উপাসনালয়ের সাদৃশদেখা যায়।

তারা গির্জায় চেয়ার ও বেঞ্চে বসে উপাসনা করে। আর দ্বীনী

বিষয়ে ইহুদী নাসারা ও অন্যান্য জাতিরসাদৃশ্য থেকেহ নিষেধ করা হয়েছে।

৫. নামায তো এমন ইবাদত যা আদায় করতে হয় বিনয়াবনত হয়ে বিগলিতচিত্তে। আর চেয়ারে বসে নামাযআদায় করার চেয়ে

জমিনে বসে নামায আদায়ের মাঝে তা পূর্ণমাত্রায় পাওয়া

যায়।

৬. কোন কোন যুবক ও সুস্থ ব্যক্তি নামাযের পর মসজিদে রাখা চেয়ারে বসে আরাম করে। কখনো কখনো চেয়ারনিয়ে গোল হয়ে

বসে আলাপচারিতায় লিপ্ত হয়। এটা মসজিদের পবিত্রতা,

মার্যাদা ও আদবের খেলাফ।

৭. মসজিদে চেয়ারের ব্যবহারের কারণে কোন কোন ছুরতে কুরআনে কারীম এবং মুরববী নামাযীদের আদব ওএহতেরামের

ব্যত্যয় ঘটে।’’

(নমুনা স্বরূপ আপত্তির এ সাতটি দিক উল্লেখ করার পর হযরত লেখেন 🙂

اس لئے اشارہ سے نماز پرهنے كے لئے بهى حتى الامكان كرسيوں

كے استعمال سے بچنا چاہئے اور ان كے استعمال كى حوصلہ

شكنى كرنى چاہئے، اور ان كا استعمال صرف ان حضرات كى حد تك محدود كرنا چاہئے جو زمين پر بيٹهكر نماز ادا كرنے پر قادر نہ ہوں.

‘‘…এ জন্যই ইশারায় নামায আদায় করার জন্যও যথাসম্ভব চেয়ারের ব্যবহার না করা চাই। চেয়ার ব্যবহারেরপ্রতি নিরুৎসাহিত

করা চায় এবং এর ব্যবহার কেবলমাত্র ঐ সকল ব্যক্তির

মাঝে সিমাবদ্ধ করা উচিত, যারাজমিনে বসে নামায আদায় করতে সক্ষম নয়।’’

এই স্পষ্ট বক্তব্য সত্ত্বেও হযরত আবার এটাও লিখেছেন যে, রুকু সিজদা করতে অক্ষম ব্যক্তিগণ জমিনের উপরবসে ইশারায়

নামায আদায় করতে সক্ষম হওয়ার পরও যদি চেয়ারে বসে

নামায আদায় করে থাকেন, তাহলেসেটাও জায়েয, কিন্তু অনুত্তম কাজ। আর দারুল উলূম দেওবন্দের ফতওয়ায় এটাকে শুধু

অনুত্তমই বলা হয়নিবরং বলা হয়েছে, তা বিভিন্ন কারণে

‘কারাহাত’ মুক্ত নয়।

আমার যদ্দুর জানা আছে, আমাদের দেশের বিভিন্ন দারুল ইফতার ফতওয়াও এটাই। মারকাযুদ দাওয়ার দারুলইফতার

ফতওয়াও এটাই যে, রুকু সিজদায় অক্ষম ব্যক্তিগণ জমিনে বসতে

সক্ষম হলে তাদের জন্য চেয়ারে বসেনামায আদায় করা মাকরূহ। যা পরিহার করা জরুরী। আর রুকু সিজদায় সক্ষম ব্যক্তি

যদি এমনটি করে তাহলেতো তার নামাযই শুদ্ধ হবে না।

মোদ্দাকথা এই যে, যে ব্যক্তি দাড়িয়ে নামায আদায় করতে অক্ষম তার জন্য বিকল্প পদ্ধতি হল, জমিনে বসে তাআদায় করা।

আর যে রুকু সিজদা করতে অক্ষম তার জন্য বিকল্প পন্থা হল,

ইশারায় তা আদায় করা। আর যেব্যক্তি যমিনে বসে নামায আদায় করতে অক্ষম তার জন্য বিকল্প হল, চেয়ারে বসে নামায

আদায় করা।কেবলমাত্র প্রথম ও দ্বিতীয় ওযরের কারণে চেয়ারে

বসে নামায আদায় করা ঠিক নয়।

আপাতত আপনার প্রশ্নের উত্তরে এই সংক্ষিপ্ত কিছু কথা বলে শেষ করলাম। যদি আল্লাহ তাওফীক দেন তাহলেমাযূর ব্যক্তিদের

নামায বিষয়ে বিস্তারিত ও দালীলীক একটি প্রবন্ধ

আলকাউসারে প্রকাশ করার ইচ্ছা থাকল।

و ما توفيقي إلا بالله عليه توكلت و إليه أنيب.

বান্দা মুহাম্মাদ আবদুল মালেক

দারুল ইফতা

মারকাযুদ দাওয়াহ আলইসলামিয়া ঢাকা

৯ জুমাদাল উলা ১৪৩৪ হিজরী

ওমর ফারুক হেলাল

তেমন কেউ না,একজন ছাত্র।মাদ্রাসায় পড়ালেখা করছি ভালো আলেম হওয়ার আশায়।পাশাপাশি দ্বীনে কিছু কাজের সাথে জড়িত আছে পরকালীন মুক্তির নেশায়। আল্লাহ আমাকে কবুল করুক। আমীন

2 thoughts on “চেয়ারে বসে নামাজ পড়ার বিধান

Leave a Reply