ইসলামের জন্য হযরত মুসআব ইবনে ওমায়ের (রাঃ) এর কষ্ট সহ্য করা

মুহাম্মদ আবদারী (রহঃ) তাহর পিতা হইতে বর্ণনা করেন যে, হযরত মুসআব  ইবনে ওমায়ের (রাঃ) মক্কার সর্বাপেক্ষা সুদর্শন প্রাপ্তবয়স্ক যুবক ছিলেন। যুবকদের মধ্যে তাহার মাথার চুল সর্বাপেক্ষা সুন্দর  ছিল। পিতামাতা তাহাকে অত্যাধিক ভালবাসিতেন। তাহার মা ধনবান মহিলা ছিলেন। ছেলেকে সর্বাধিক সুন্দর ও পাতলা কাপড় পরিধান করাইতেন।
হযরত মুসআব (রাঃ) মক্কায় সর্বাধিক পরিমাণে দামী সুগন্ধি আতর ব্যবহার করিতেন এবং হাযারা মঊত হইতে আমদানীকৃত দামী জুতা পরিতেন। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাহার আলোচনা প্রসঙ্গে বলিতেন, মক্কায় মুসআব  ইবনে ওমায়ের অপেক্ষা সুন্দর চুলের অধিকারী, পাতলা কাপড় পরিধানকারী ও ভোগবিলাসে লালিত আর কাহাকেও দেখি নাই। হযরত মুসআব  ইবনে ওমায়ের (রাঃ) যখন জানিতে পারিলেন যে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হযরত আরকাম ইবনে আরকাম (রাঃ) এর ঘরে ইসলামের দাওয়াত প্রদান করিতেছেন তখন তিনি  রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট যাইয়া ইসলাম গ্রহণ করিলেন এবং তাঁহাকে সত্য বলিয়া স্বীকার করিলেন। সেখান হইতে বাহির হইয়া মা ও কওমের ভয়ে ইসলাম গ্রহণের কথা গোপন রাখেন। তিনি গোপনে  রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের খেদমতে যাওয়া আসা করিতেন। একদিন ওসমান ইবনে তালহা তাহাকে নামায পড়িতে দেখিয়া তাহার মা ও কাওমকে জানাইয়া দিলেন। কাওমের লোকেরা তাহাকে ধরিয়া আটক করিল। পরে তিনি এই বন্দী অবস্থা হইতে হাবশার প্রথম হিজরতের সময় হাবশার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। তারপর যখন মুসলমানরা হাবশা হইতে ফিরিলেন তিনিও তাহাদের সহিত ফিরিয়া আসিলেন। তখন তাহার অবস্থা পরিবর্তন হইয়া একেবারে ভগ্নাবস্থা হইয়া গিয়াছিল। তাহার এই ভগ্নাবস্থা দেখিয়া মা গালাগাল ও তিরস্কার করা হইতে বিরত হইল।

[হায়াতুস সাহাবাহ (রাঃ) ১ম খন্ড ]

নুর করিম

I am a student of Islam

Leave a Reply