জরুরী নছহিত (৬ষ্ঠ খণ্ড)

বিসমিল্লাহির রহমানীর রহিম

আসসালামু আলাইকুম, কেমন আছেন সবাই? আশা করি ভালই আছেন? আমিও আপনাদের দোয়ায় অনেক ভাল আছি। তাহলে কাজের কথায় আসি।

প্রথম খণ্ড, দ্বিতীয় খণ্ড, তিত্বীয় খণ্ড, ৪র্থ খণ্ড, ৫ম খণ্ড যারা পড়েন নি, তারা পড়ে নিন।

৫ম খণ্ডের পরে।

কোন কোন সময় ইহাও সম্ভব যে, তোমার ধারণা মতে স্বামীর অসন্তুষ্টি একেবারেই অকারণ এবং এমন হইতে পারে যে, বাস্তবে তোমার ধারণাই সত্য, এমতাবস্থায়ও অত্যন্ত ধৈর্য্য সহকারে খুব বুদ্ধিমত্তার সহিত সহ করিবে। এমনকি তোমার কথায় তো দূরের কথা, ইশারা ইঙ্গিতেও যেন প্রকাশ না পায় যে, তাহার ক্রোধ করা অন্যায় এবং রাগ করা অমূলক ছিল। তোমার এই ধৈর্য অবশেষে একদিন তাহাকে অবহিত করিবে যে, তাহার এই রাগ অকারণে ছিল। ইহার পরিণতি অতীব শুভ এবং তোমার প্রতি অত্যধিক দয়া ও মেহেরবানীর কারণ হইবে। এইরূপ ব্যবহারে তো শত্রুও মিত্র হয়; আর স্বামী তো স্বামীই। অবশ্য এই ধৈর্য্য ধারণ কালে এদিকে খুব সজাগ দৃষ্টি রাখিও যেন, তোমার চোখে ভ্রু-কুঞ্চিত না হয়; বরং প্রফুল্ল ও আনন্দিত থাকিবে। কথাবার্তায় চালচলনে কিছুতেই অসন্তুষ্টির ভাব ফুটিয়া না ওঠে। স্বামীর সহিত কথাবার্তা বলার সময়ও এদিকে লক্ষ্য রাখিও। সম্বোধনে এমন শব্দ কিছুতেই ব্যবহার করিও না যদ্দারা বে-আদবি বুঝে আসে। স্বামী কোন কথা বলিলে প্রথমে খুব মন দিয়া শুন, তারপর আদব সহকারে যথাযথ উত্তর দাও। উত্তর অতি উচ্চ স্বরে দিওনা, আবার এত নিম্ন স্বরেও দিওনা যে, আওয়াজ শুনা না যায়। স্বামী যদি কোন ঘটনা সম্বন্ধে অবগত হন কিংবা ভুল বুঝিয়া থাকেন তবে ঐ ঘটনা সম্পর্কে ভুল বুঝাবুঝি অতি আদব ও ভক্তি সহকারে খণ্ডন করিতে চেষ্টা কর। এমন শব্দ প্রয়োগ করিও না যাহাতে স্বামীর প্রতি ঐ ব্যাপরে অজ্ঞতার কটাক্ষ হয়। আর যদি মানবতা সুলভ দুর্বলতার কারণে বিচ্যুতি হইয়া পড়ে তবে উহা স্বীকার করিয়া মাফ চাহিয়া লও। ইহার ফল হইবে অতীব শুভ। স্বামীর কাছে যদি কোন কথা জিজ্ঞাসা করার প্রয়োজন হয়, দ্বীনি মাস্‌আলা বিষয়কই হউক কিংবা সাংসারিক কোন কথা হউক, তবে উহা পরিস্কার ও স্পষ্টভাবে জিজ্ঞাসা কর এবং ভাল রূপে বুঝিয়া নিশ্চিত হও।

আজ এপর্যন্তই, পরবর্তি খণ্ড নিয়ে খুব তারাতারিই আপনাদের মাঝে হাজির হব ইনশাআল্লাহ্

ভাল লাগলে কমেন্টে জানাতে ভুলবে না…

মোঃ আবুল বাশার

আমি একজন ছাত্র,আমি লেখাপড়ার মাঝে মাঝে একটা ছোট্ট পত্রিকা অফিসে কম্পিউটার অপরেটর হিসাবে কাজ করে,নিজের হাত খরচ চালানোর চেষ্টা করি, আমি চাই ডিজিটাল বাংলাদেশ হলে এবং তাতে সেই সময়ের সাথে যেন আমিও কিছু শিখতে পারি। আপনারা সকলে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পরার চেষ্টা করুন এবং অন্যকেও ৫ওয়াক্ত নামাজ পরার পরামর্শ দিন। আমার পোষ্ট গুলো গুরে দেখার জন্য ধন্যবাদ, ভাল লাগেলে কমেন্ট করুন। মানুষ মাত্রই ভুল হতে পারে,ভুল ত্রুটি,হাসি,কান্না,দু:খ,সুখ,এসব নিয়েই মানুষের জীবন। ভুলে ভড়া জীবনে ভুল হওয়াটা অসম্ভব কিছু নয়,ভুল ত্রুটি ক্ষমার দৃর্ষ্টিতে দেখবেন। আবার আসবেন।

Leave a Reply