কুর’আনেপ্রযুক্তি [পর্ব-১২] ::একাধিক বিশ্বের উপস্থিতি

আসসালামুআলাইকুম ও শুভেচ্ছা সবাইকে 🙂 ।সবাই ভাল আছেন আল্লাহর রহমতে আশা করি।

কুরআনেপ্রযুক্তি [পর্ব১২] ::একাধিক বিশ্বের উপস্থিতি

wormhole

001.002 الْحَمْدُ لِلَّهِ رَبِّ الْعَالَمِينَ

সকল প্রশংসা আল্লাহর জন্যে, যিনি সকল বিশ্বের প্রতিপালক।

Al-Qur’an, 001.002 (Al-Fatiha [The Opening])

এটি কুরআন মাজিদের প্রথম সুরার প্রথম আয়াত। চৌদ্দশত বছর পূর্বে মানুষের মন, পৃথিবী, সৌর জগৎ কিংবা ছায়াপথসমূহ সম্পর্কে কোনো ধরনের স্বচ্ছ ধারণা করতে অক্ষম ছিল। এমতাবস্থায় কুরআন মাজিদের সর্বপ্রথম আয়াত বলে যে, আল্লাহ তাআলা সকল বিশ্বের অধিপতি, যা পৃথিবী ব্যতীত আরও একাধিক বিশ্বের উপস্থিতির সাক্ষ্য বহন করে। বস্ত্তত ‘সকল বিশ্বের অধিপতি’ কথাটি কুরআন মাজিদে সর্বমোট ৭৩ বার দেখা যায়। যেমন : সুরা ও আয়াত নং ২: ১৩১; ৬: ৪৫,৭১; ২৬: ১৬; ৩২: ০২;

৪১: ০৯; ৪৩: ৪৬; ৬৯: ৪৩ ইত্যাদি। বর্তমানে মানব সমাজ এ ব্যাপারে সম্যক অবহিত যে, পৃথিবী ছাড়া আরও গ্রহ রয়েছে। এই বিষয়টি জানা গেছে কেবল টেলিস্কোপ আবিষ্কার ও অন্যান্য বৈজ্ঞানিক উৎকর্ষ সাধনের মাধ্যমে। অথচ সর্বশক্তিমান সৃষ্টিকর্তা তার প্রিয়নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর ওপর এই জ্ঞান অবতীর্ণ করেছেন মানুষ টেলিস্কোপ ও অন্যান্য বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি আবিষ্কারের অনেক পূর্বে।

Big Bang এর কথায় একটু আসা যাক , যদিও বর্তমান বিশ্বে আলোচনা অন্যতম কেন্দ্রবিন্দু ও পক্ষে -বিপক্ষে চলছে যুক্তির ঝড় এবং সমসাময়িকতার সাথেও বইছে সমালোচনার ঝড় কারন বর্তমান সময়ের কিছু প্রখ্যাত বিজ্ঞানী এখনো এটি সম্পূর্ন সমর্থন করেননি এবং বেশ কিছু timetravelworm2অন্যরকম যুক্তিকতার অবতারনা করেছেন তাঁরা বলেন ‘‘আমাদের এই মহাবিশ্ব দিয়েই সবকিছুর প্রারম্ভিক নয়, এই ক্ষদ্র মহাবিশ্ব শুধু মাত্র একটি শিশু মহাবিশ্ব যার ‘‘Parents Universe’’ রয়েছে। প্রতিটি Universe ঠিক পানির বুদবুদের মতো ভাসছে, প্রতিটি বুদবুদের অভ্যন্তরে রয়েছে- হাজার কোটি গ্যালাক্রী, নক্ষত্র, ছায়াপথ, নিহারিকা ,গ্রহ, Black whole, White whole, Warm whole, উপগ্রহ, গ্রহাণু ও ধূমকেতুসহ অগুনিত জানা-অজানা মহাজাগতিক বস্ত্ত ও আলোর বিকিরন, আলো এমনকি সময় ’’ অর্থাৎ প্রতিনিয়ত Big Bang ঘটে চলছে এবং এক মহাবিশ্ব অন্য মহাবিশ্বের জন্ম দিচ্ছে তারা আরও বলেন-‘‘ সর্বগ্রাসী Black whole দিয়ে গ্যালাক্রী, নক্ষত্র, ছায়াপথ, নিহারিকা ,গ্রহ, আলো এমনকি সময় প্রবেশ করে কিন্তু বের হয় কোন পথে? যেপথে বের হয় তা Big Bang -এর নামান্তর নয়কি? যখন বেসিনের ক্ষুদ্র ফুটো দিয়ে পানি প্রবেশ করে বড় টাংকিতেই ছড়িয়ে পড়ে যাকে ‘‘সম্প্রসারিত মহাবিশ্ব’’ বলা হয়। একেক বিশ্ব বিভিন্ন ডাইমেন্শনে থাকার কারনে আমাদের পক্ষে অন্য মহাবিশ্ব অবলোকন করা সম্ভব হচ্ছেনা এবং প্রতিটি মহাবিশ্বে যাতায়াতের জন্য অতি সংক্ষিপ্ত রাস্তা আছে যাকে ডধৎস যিড়ষব বলা হয়’’ তাঁরা উদাহরন স্বরুপ সমুদ্রে ভাসমান নৌকায় মানুষদের এবং পানির নীচে মাছেদের ব্যবধানের বিশ্লেষন করেছেন।

220px-LorentzianWormholeকুরআন মাজিদ তিন প্রকারের সৃষ্টির কথা বারবার উল্লেখ করেছে : যেসব বিষয় বা বস্ত্ত নভোমন্ডলে রয়েছে, যেসব বস্ত্ত ভূমন্ডলে রয়েছে এবং যেসব বস্ত্ত নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলের মাঝখানে রয়েছে। আল্লাহ বলেন-

015.085 وَمَا خَلَقْنَا السَّمَاوَاتِ وَالأرْضَ وَمَا بَيْنَهُمَا إِلا بِالْحَقِّ وَإِنَّ السَّاعَةَ لآتِيَةٌ فَاصْفَحِ الصَّفْحَ الْجَمِيلَ

আমি নভোমন্ডল, ভূমন্ডল এবং এতদুভয়ের মাঝখানে যা কিছু আছে তা যথার্থভাবেই সৃষ্টি করেছি। (হিজর, ১৫ : ৮৫)

Al-Qur’an, 015.085 (Al-Hijr [Al-Hijr, Stoneland, Rocky City])

020.006 لَهُ مَا فِي السَّمَاوَاتِ وَمَا فِي الأرْضِ وَمَا بَيْنَهُمَا وَمَا تَحْتَ الثَّرَى

নভোমন্ডলে, ভূমন্ডলে, এতদুভয়ের মধ্যবর্তী স্থানে এবং সিক্ত ভূগর্ভে যা আছে তা তাঁরই। (ত্বাহা, ২০ : ০৬)

Al-Qur’an, 020.006 (Ta-Ha [Mystic letters Ta-Ha])

021.016 وَمَا خَلَقْنَا السَّمَاءَ وَالأرْضَ وَمَا بَيْنَهُمَا لاعِبِينَ

নভোমন্ডল, ভূমন্ডল ও এতদুভয়ের মাঝে যা আছে, তা আমি অকারনে সৃষ্টি করিনি। (আম্বিয়া, ২১ : ১৬)

Bajoran_wormhole_schematicAl-Qur’an, 021.016 (Al-Anbiya [The Prophets])

কুরআন মাজিদের আরও কিছু আয়াত সেসব বস্ত্তর নির্দেশ করে যা আল্লাহ তাআলা নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলের মাঝখানে সৃষ্টি করেছেন। যেমন : ২৫:৫৯; ৩২:০৪; ৪৩:৮৫; ৪৪:০৭, ৩৮; ৪৬:০৩; ৫০:৩৮; এবং ৭৮:৩৭। মহাকাশ বিজ্ঞান সংক্রান্ত আমাদের সাম্প্রতিক জ্ঞানের ভিত্তিতে আমরা বর্তমানে কুরআন মাজিদে বারংবার উল্লিখিত এসব বিষয়ের ব্যাখ্যার একটি পর্যায়ে রয়েছি। বৈজ্ঞানিকগণ সাম্প্রতিক সময়ে মহাশূন্যে ছায়াপথ বহির্ভূত বস্ত্তর উপস্থিতি আবিষ্কার করেছে। আমাদের মহাবিশ্বের মৌলিক গঠন KerrBlackHole00প্রক্রিয়া সংযুক্তি ও একীভূত হওয়ার পর বিভাজন ও বিক্ষেপণের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। যেমনটি ইতোপূর্বে বর্ণিত হয়েছে, কুরআন মাজিদ মহাবিশ্বের গঠন প্রক্রিয়ার বর্ণনা দিয়েছে সর্বাধিক উপযুক্ত আরবি শব্দ ‘ফাতাক্ব’ (বিভাজন) ও ‘রাতাক্ব’ (সংযুক্তি)- এর মাধ্যমে। ‘রাতাক্ব’ (সংযুক্তি)- এর প্রাথমিক প্রক্রিয়ার সময় কিছু টুকরো মহাশূন্যের বাইরে থেকে গিয়েছিল। এগুলিকেই বর্তমানে আন্তঃছায়াপথীয় বস্ত্ত বলা হয়। মহাকাশ বিজ্ঞানীরা অতি সম্প্রতিই সেসবের উপস্থিতি সনাক্ত করতে পেরেছে। পক্ষান্তরে কুরআন মাজিদ এসব বিক্ষিপ্ত টুকরার উপস্থিতির স্বীকৃতি দিয়েছে বহু শতাব্দী পূর্বে।

 

আপনাকে ধন্যবাদ সময় নিয়ে পোষ্টটি পড়ার জন্য।

 

 

শাহরিয়ার আজম

B.Sc.IT (S. M University,India),/ M.A & Ph.D (Paris University, France), DEW, Belgium

http://www.facebook.com/pages/Al-Quran-Modern-Science/140069416050931

http://muslim.zohosites.com/ http://www.quranic-science.blogspot.com/

শাহরিয়ার আজম

B.Sc.IT (S. M University,India),/ M.A & Ph.D (Paris University, France), DEW, Belgium

Leave a Reply