জরুরী নছহিত (প্রথম খণ্ড)

বিসমিল্লাহির রহমানীর রহিম

আসসালামু আলাইকুম, কেমন আছেন সবাই? আশা করি ভালই আছেন। আমিও আপনাদের দোয়ায় অনেক ভাল আছি। তাহলে কাজের কথায় আসি।

 

তাওহীদ ও রেসালাতঃ  যাবতীয় কাজের মধ্যে আল্লাহর বন্দেগী এবং রসূলে মকবুল (সঃ) পায়রবীর স্থান সর্বাগ্রে; কাজেই এ কথাটি সদাসর্বদা অন্তরে জাগরুক রাখিবে। আল্লাহ্ তা’আলা এবং রাসূলে-মকবুল (সঃ)এর বিপরীত, খেলাফ কেহ যদি কোন কাজ করিতে বলে, আদেশকারী যে কেহই হউক না কেন, কিছুতেই তাহা মানিও না। দেখ! আল্লাহ্ পাক কোরান  মজীদে মা- বাপের তাবেদারী করতে খুব বেশি তাকীদ করিয়াছেন। এমন কি হাদীছে বলা হইয়াছে, “সন্তানের বেহেস্ত মা বাপের পদতলে” এতদসত্বেও আল্লাহ্ এবং তাহার রসূলের বিরুদ্ধে যদি মা- বাপও কোন আদেশ করেন তাহাও মানিও না। আল্লাহ্ তা’আয়া স্বীয় কালামে পাকে ফরমাইয়াছেনঃ

 

وَإِن جَـٰهَدَاكَ عَلَىٰٓ أَن تُشْرِكَ بِى مَا لَيْسَ لَكَ بِهِۦ عِلْمٌۭ فَلَا تُطِعْهُمَا ۖ وَصَاحِبْهُمَا فِى ٱلدُّنْيَا مَعْرُوفًۭا ۖ [٣١:١٥]
“আইন জা-হাদা-কাআ”লা আন্তসরিকিবি-মা-লাইছালাকা বিহি-উল্নুন্ ফালা-তুতি ‘হুমা-অছ-হিবহু মা-ফিদ্দূনয়্যু মা’রু-ফা”
অর্থঃ-
পিতা-মাতা যদি তোমাকে আমার সাথে এমন বিষয়কে শরীক স্থির করতে পীড়াপীড়ি করে, যার জ্ঞান তোমার নেই; তবে তুমি তাদের কথা মানবে না এবং দুনিয়াতে তাদের সাথে সদ্ভাবে সহঅবস্থান করবে। যে আমার অভিমুখী হয়, তার পথ অনুসরণ করবে। অতঃপর তোমাদের প্রত্যাবর্তন আমারই দিকে এবং তোমরা যা করতে, আমি সে বিষয়ে তোমাদেরকে জ্ঞাত করবো।

 

 

তাহলে আজ এপর্যন্তই।

 

পরবর্তি খণ্ড নিয়ে খুব তাড়াতাড়িই আপনাদের মাঝে হাজির হব ইনশাআল্লাহ্

ভাল লাগলে কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না…

ভুলে ভরা জীবনে ভুল হওয়াটা অসম্ভব কিছু নয়,যদি আমার লেখার মাঝে কোন ভুলত্রুটি থাকে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। ধন্যবাদ সবাই ভাল থাকবেন।

মোঃ আবুল বাশার

আমি একজন ছাত্র,আমি লেখাপড়ার মাঝে মাঝে একটা ছোট্ট পত্রিকা অফিসে কম্পিউটার অপরেটর হিসাবে কাজ করে,নিজের হাত খরচ চালানোর চেষ্টা করি, আমি চাই ডিজিটাল বাংলাদেশ হলে এবং তাতে সেই সময়ের সাথে যেন আমিও কিছু শিখতে পারি। আপনারা সকলে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পরার চেষ্টা করুন এবং অন্যকেও ৫ওয়াক্ত নামাজ পরার পরামর্শ দিন। আমার পোষ্ট গুলো গুরে দেখার জন্য ধন্যবাদ, ভাল লাগেলে কমেন্ট করুন। মানুষ মাত্রই ভুল হতে পারে,ভুল ত্রুটি,হাসি,কান্না,দু:খ,সুখ,এসব নিয়েই মানুষের জীবন। ভুলে ভড়া জীবনে ভুল হওয়াটা অসম্ভব কিছু নয়,ভুল ত্রুটি ক্ষমার দৃর্ষ্টিতে দেখবেন। আবার আসবেন।

2 thoughts on “জরুরী নছহিত (প্রথম খণ্ড)

    • January 12, 2013 at 1:05 pm
      Permalink

      ভাই সময়ের অভাবে বেশি লিখতে পারি না, আর বিশেষ করে বেশি বড় লেখা থাকলে সবাই পড়তেও চায় না, তাই কম কম লিখলে সবাই পড়ে, আর যদি সবাই লেখাটা না পড়ে তাহলে আমার এতকষ্ট করে লেখার কোন মানেই হচ্ছে না, তাই আমার লেখার সর্থকতার জন্য কম কম লেখি।

Leave a Reply